Home » ভালো খেললে সব ছাড়!

ভালো খেললে সব ছাড়!

0 মন্তব্য 8 ভিউজ

চন্ডিকা হাথুরুসিংহের সেকাল আর একালের পার্থক্যটা অনেকটা আকাশ-পাতালের মতোই। ২০১৪ সালে হাথুরুসিংহে ছিলেন ‘অ্যাংরি ম্যান’ অর্থাৎ একটুতেই রেগে যেতেন। চুন থেকে পান খসলেই ড্রেসিংরুমে কড়া হেডমাস্টার। এককথায় ‘একনায়ক’। সেই কোচের ক্ষোভের আগুনে পুড়তে হয়েছিল দেশসেরা ক্রিকেটার সাকিব আল হাসানকেও।

কোচের সঙ্গে খারাপ আচরণ করার অপরাধে ক্যারিবীয় প্রিমিয়ার লিগে (সিপিএল) খেলার অনাপত্তিপত্র বাতিল করা হয়েছিল। লন্ডন থেকে ফিরতে হয়েছিল দেশে। আগেপিছের অপরাধের শাস্তি দেওয়া হয়েছিল ছয় মাসের নিষেধাজ্ঞা। সেই সাকিবই এবার চন্ডিকার উপস্থিতিতে কত কিছুই না করছেন। অনুশীলন শেষ করে ঢাকায় বিজ্ঞাপনী প্রচারণায় অংশ নিয়েছেন। চট্টগ্রামে টি২০ ম্যাচ শেষ করে বিপণিবিতানের শোরুম উদ্বোধন করেছেন। গুঞ্জন আছে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্ট ম্যাচ থেকে ছুটি নিয়ে আইপিএল খেলবেন কলকাতা নাইট রাইডার্সে। কোচ হাথুরুসিংহের এসবের কোনো কিছুতেই আপত্তি নেই বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনের স্নেহের হাত সাকিবের মাথার ওপর থাকায়।
বিসিবি কর্মকর্তারা এত দিনে বুঝে গেছেন সাকিবকে চটিয়ে খুব একটা লাভ হয় না। বরং সে খুশি থাকলে জাতীয় দলেরই লাভ। অনুশীলনে বিরতি দিয়ে বিজ্ঞাপনের পর বিজ্ঞাপন করেও ভালো খেলতে পারলে সমস্যা দেখেন না ক্রিকেট সংশ্লিষ্টরা। বিসিবি সভাপতিও তাই হয়তো টেস্ট ও টি২০ অধিনায়ককে ফ্রি লাইসেন্স দিয়ে রেখেছেন খেলার ফাঁকে ফাঁকে বাণিজ্যিক কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাওয়ার। বিজ্ঞাপনের বাজার থেকে উপার্জন করে খুশি সাকিব মাঠেও উজাড় করে দিচ্ছেন। এত কিছু করেও জাতীয় দলের সেরা পারফরমার তিনি। বিপিএল থেকে শুরু করে জাতীয় দলেও পারফরমার সাকিবের জয় জয়কার। চট্টগ্রামের শেষ ওয়ানডেতে তিনি অলরাউন্ড পারফরম্যান্স করায় দল জিতেছে। টি২০ ক্রিকেটে তো দলকে নেতৃত্ব দিয়েছেন সামনে থেকে।

বিসিবি কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, তাঁরা চান পারফরমার সাকিবকে। একজন কর্মকর্তা বললেন সেই বহুল প্রচলিত বাগধারা, ‘দুধ দেওয়া গরুর লাথিও ভালো।’ এতে বোঝা যায় হাথুরুসিংহেকে নিয়োগ দেওয়ার পর পরই হয়তো সাকিবের স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ না করতে বলে দেওয়া হয়েছে।

সাকিবের সঙ্গে বোঝাপড়ার ইস্যু নিয়ে প্রশ্ন করা হলে টাইগার প্রধান কোচ প্রথম সংবাদ সম্মেলনে পরিষ্কার করে দেন, ‘সাকিবের সঙ্গে আমার কথা হয়েছে, তার কাছে সবার আগে দল।’ এমনকী সাকিব-তামিমের ব্যক্তিগত দ্বন্দ্বেও কোনো সমস্যা দেখেন না তিনি।

২০১৪ সালে হাথুরুসিংহের মতো বিসিবি সভাপতি পাপনও ছিলেন কড়া। কথায় কথায় ক্রিকেটারদের শাস্তি দিতে দ্বিধা করতেন না। হাথুরুসিংহের চাওয়াই ছিল পাপনের চাওয়া। এক দশকের বিসিবি শাসনের অভিজ্ঞতা থেকে পাপন এখন আরও পরিণত। সাকিবের মতো চ্যাম্পিয়ন ক্রিকেটারের কাছ থেকে পারফরম্যান্স বের করে নেওয়ার কৌশল ভালো করেই জানেন। বেট উইনার স্পোর্টসের মতো বিতর্কিত জুয়ার সাইটের বিজ্ঞাপন করেও শাস্তি পেতে হয়নি বাঁহাতি অলরাউন্ডারকে। চুক্তি বাতিল করাতে খুশি হয়ে সাকিবকেই টেস্টের অধিনায়ক করেছেন। এ নিয়ে অবশ্য ক্রিকেট পাড়ায় কানাঘুষা চলছে– সাকিব দেশসেরা ক্রিকেটার বলেই এত স্বাধীনতা পাচ্ছেন।

প্রশ্ন উঠেছে জাতীয় দলের অন্য ক্রিকেটাররাও অনুরূপ ছাড় পাবেন কিনা বোর্ডের কাছ থেকে। আইপিএলে সাকিবের সঙ্গে মুস্তাফিজুর রহমান ও লিটন কুমার দাসকেও ছাড়পত্র দেওয়া হবে কিনা। শোনা যাচ্ছে, এবার সাকিবের সঙ্গে বাকি দুজনও আইপিএল খেলার ছাড়পত্র পাবেন। তবে অন্য সুবিধাগুলো ভোগ করতে হলে মাঠের পারফরম্যান্সেও সবাইকে সাকিব হতে হবে! এরপরেও কথা থাকে, দেশের ক্রিকেটের জন্য কী ধরনের দৃষ্টান্ত রেখে যাচ্ছেন সাকিব? উত্তর হতে পারে জাতীয় দলের অফিসিয়াল সংবাদ সম্মেলনে না এসে মিডিয়াকে একপ্রকার বাধ্য করছেন বিজ্ঞাপনের চুক্তি অনুষ্ঠানে যেতে। মিডিয়া কর্মীরাও রুদ্ধশ্বাসে ছুটছেন দেশসেরা ক্রিকেটার, টেস্ট ও টি২০ অধিনায়কের মুখনিঃসৃত ক্রিকেটীয় বাণী শোনার জন্য। ‘বুদ্ধিমান’ সাকিব কখনও এক-দুই লাইন বলেই মঞ্চ ছাড়ছেন। কারণ পরের কোনো অনুষ্ঠানেও তো সাংবাদিক লাগবে।

আরও পড়ুন

মতামত দিন

আমাদের সম্পর্কে

We’re a media company. We promise to tell you what’s new in the parts of modern life that matter. Lorem ipsum dolor sit amet, consectetur adipiscing elit. Ut elit tellus, luctus nec ullamcorper mattis, pulvinar dapibus leo. Sed consequat, leo eget bibendum Aa, augue velit.