Home » খেলোয়াড়দের ইনজুরি সারিয়ে দিচ্ছে এআই

খেলোয়াড়দের ইনজুরি সারিয়ে দিচ্ছে এআই

0 মন্তব্য 27 ভিউজ

বিশ্বের শীর্ষ ফুটবলারদের শরীরে চোট খুঁজতে যে প্রযুক্তি ব্যবহৃত হতো, তাই এখন কাজে লাগছে সাধারণ খেলোয়াড়দের হাঁটু বা পিঠের ব্যথা সারাতে। স্পোর্টস মেডিসিনের পরীক্ষাগারে এক বাস্কেটবল খেলোয়াড়ের পারফরম্যান্স অ্যানালিসিস পরীক্ষা চলছে। পরীক্ষকের ইশারায় হাওয়ায় লাফ দিয়ে এক পায়ে এসে নামতে হবে একটি নির্দিষ্ট বাক্সের ভেতরের জায়গাতেই।
পরীক্ষকের ভূমিকায় ড. হাউকে ডেউইটৎজ বলেন, ‘আরো একবার দরকার!’ ১৬ বছর বয়সি এই খেলোয়াড় লাফাতে থাকে, শরীরে ছোট বিড বা পুঁতি, অন্যান্য মার্কার ও ইলেকট্রোড নিয়ে, যা তার পেশির পরীক্ষা করে। কয়েক মাস ধরে ডান হাঁটুর ব্যথা ভোগাচ্ছে এই খেলোয়াড়কে। তাই সে আজ এই ল্যাবে। নিয়ন্ত্রিত পরিবেশে পরীক্ষানিরীক্ষা শেষ হবার পর, খেলোয়াড়দের হাড় বিশেষজ্ঞের রিপোর্ট প্রস্তুত।
হাঁটুর মধ্যে থাকা পাটেলার টেন্ডন কেন আঘাতপ্রাপ্ত, এই পরীক্ষার ফলাফলের মধ্যে তার কারণ খোঁজার চেষ্টা করছেন ড. ডেউইটৎজ। কেন অজান্তেই হাঁটু একদিকে হেলে যায়? পেশিগুলি কি ঠিকঠাকভাবে শরীরের গতি কমাতে পারছে? হাড়ের সন্ধিস্থলে বা জয়েন্টে এর কেমন প্রভাব পড়ছে? বায়োমেকানিক্যাল বিশ্লেষণ এর উত্তর দিতে পারবে।
নতুন ধরনের ব্যথা বা যন্ত্রণা ছাড়া খেলোয়াড়দের সমস্যাও আর পাঁচটা লোকের মতোই, যেমন টেন্ডনের ব্যথা, পেশি বা হাড়সন্ধি ধকল সইতে না পারা। এমনটাই বলছে ড. উইটৎজের অভিজ্ঞতা। তিনি বলেন, ‘মানুষ সব সময় ভাবে যে পেশাদার খেলোয়াড়রা এতটা প্রশিক্ষিত বলেই তাদের পরীক্ষায় কোনো দুর্বলতা ধরা পড়ে না।’
লাইপৎজিশ বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োমেকানিকস ল্যাবের প্রধান প্রফেসর মারেন ভিট ডয়চে ভেলেকে বলেন, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সিদ্ধান্ত গ্রহণের গুরুত্বপূর্ণ সাহায্য দেবে। এআই পরীক্ষার ফলাফল ডাক্তার, ফিজিওথেরাপিস্ট ও রোগীদের জানাবে ব্যথা কোথা থেকে আসছে ও কীভাবে তার সুরাহা হবে।
ভিট বলেন, ‘আমরা বর্তমানে দেখছি কীভাবে এই প্রযুক্তি, যা এত দিন শুধু শীর্ষ পদে থাকা খেলোয়াড়দের জন্য বরাদ্দ ছিল, তা আজ বহু লোকের হাতের নাগালে।’ এক সময় ব্যক্তিগত পরীক্ষা করতে কয়েক দিন লাগত। এখন তাই সম্ভব কয়েক ঘণ্টায়। ভিট আরো বলেন, ‘ভবিষ্যতে, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা শরীরে মার্কিং করা বা দাগ দেওয়াকেও অপ্রয়োজনীয় সাব্যস্ত করবে।’
সময় বাঁচাবার সাথে সাথে এটা তাদেরও সাহায্য করবে, যারা হাঁটু, কোমর বা পিঠের সমস্যায় পরীক্ষা করালেও সুইমস্যুট পরতে চান না। আগামী কয়েক বছরে, হাউকে ডেউইটৎজ আশা করেন যে ল্যাবের পাশাপাশি, স্বাভাবিক প্রশিক্ষণের পরিবেশে বা খেলার মাঠেই যাতে খেলোয়াড়রা নিজেদের পরীক্ষা করতে পারেন। তিনি বোঝান, ‘তাতে আরো ব্যক্তিভিত্তিক পরীক্ষা সম্ভব হবে ও ব্যথার কেন্দ্রভিত্তিকও।’ সূত্র: ডয়চে ভেলে।

আরও পড়ুন

মতামত দিন


The reCAPTCHA verification period has expired. Please reload the page.

আমাদের সম্পর্কে

We’re a media company. We promise to tell you what’s new in the parts of modern life that matter. Lorem ipsum dolor sit amet, consectetur adipiscing elit. Ut elit tellus, luctus nec ullamcorper mattis, pulvinar dapibus leo. Sed consequat, leo eget bibendum Aa, augue velit.