Home » ‘ক্রিকেট ঈশ্বরের’ জন্মদিন আজ

‘ক্রিকেট ঈশ্বরের’ জন্মদিন আজ

0 মন্তব্য 86 ভিউজ

আজ ২৪ এপ্রিল, ক্রিকেট কিংবদন্তি শচীন টেন্ডুলকারের ৫০তম জন্মদিন। ভক্তদের ভালোবাসায় সিক্ত হচ্ছেন ‘ক্রিকেট ঈশ্বর’। ১৯৭৩ সালের ২৪ এপ্রিল মুম্বাইয়ে বিখ্যাত টেন্ডুলকার পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন ‘আধুনিক ক্রিকেটের ডন’। এই জীবন্ত কিংবদন্তির জন্মদিনে তার পরিবারের পক্ষ থেকে বিশেষ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। আইসিসি, বিসিসিআই, মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স থেকে শুরু করে সাবেক থেকে বর্তমান ক্রিকেটাররাও জন্মদিনে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন শচীনকে। বর্নাঢ্য ক্যারিয়ারের বিভিন্ন মুহূর্তের ছবির কোলাজ বানিয়ে শেয়ার করেছে আইসিসি। ক্যাপশনে লিখেছে, ‘শচীন টেন্ডুলকরের আরো একটা হাফ সেঞ্চুরি। বছরের পর বছর ধরে ক্রিকেটের কিংবদন্তি।’

শচীন রমেশ টেন্ডুলকার। এই মানুষটির জন্য দুই যুগ ধরে নিজেদের সমর্থন উজাড় করে দিয়েছে ভারত। শুধু ভারতই নয়, এই ক্রিকেট মহানায়কের সমর্থক রয়েছে পুরো বিশ্বব্যাপী। আজ সোমবার (২৪ এপ্রিল) এই তারকা জন্মদিন। ৫০ বছরে পা রাখেলেন তিনি। ১৯৭৩ সালে আজকের দিনে মুম্বাইয়ে জন্মগ্রহণ শচীন। তবে সেই কোঁকড়ানো চুলের ছেলেটা যে ‘ক্রিকেটের ঈশ্বর’ হয়ে উঠবেন, তা হয়ত অনেকেই ভাবেননি। কিন্তু যেমন প্রতিভা, কঠোর পরিশ্রম, নাছোড়বান্দা মনোভাবে ভর করে ২৪ বছর বিশ্ব ক্রিকেটকে শাসন করেছেন। দেশের জন্য নিজেকে উজাড় করে দিয়েছেন। বাবার মৃত্যুর পরই বিশ্বকাপে এসে খেলেছেন। পেয়েছেন অনেক প্রশংসা।
হিন্দুস্তান টাইমসে প্রকাশ হওয়া এই মহাতারকার জন্মদিনে একনজরে দেখে নিন, আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তার তৈরি করে যাওয়া কয়েকটি রেকর্ড।

সর্বাধিক ম্যাচ
২৪ বছরের দীর্ঘ ক্যারিয়ারে মোট ৬৬৪ টি ম্যাচ খেলেছেন শচীন। বিশ্বের কোনো ক্রিকেটার এত সংখ্যক আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেননি। শুধুমাত্র ২০০ টি টেস্ট ম্যাচই খেলেছেন শচীন। সেই রেকর্ডও কারো নেই। সেইসঙ্গে ৪৬৩ টি একদিনের ম্যাচ এবং একটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেছেন। এখন যারা খেলছেন, তারা কেউ শচীনের ধারেকাছেও নেই। এখনকার ক্রিকেটারদের মধ্যে সর্বপ্রথম আছেন বিরাট কোহলি। তিনি ৪৯৭ টি ম্যাচে খেলেছেন।

একটানা আন্তর্জাতিক ম্যাচ

লাগাতার ২৩৯ টি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছেন শচীন। ১৯৯০ সালের ২৫ এপ্রিল থেকে ১৯৯৮ সালের ২৪ এপ্রিল পর্যন্ত একটি ম্যাচেও সচিন ছাড়া মাঠে নামেনি ভারত।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে সর্বাধিক রান

৬৬৪ টি ম্যাচে (৭৮২) মোট ৩৪,৩৫৭ রান করেছেন শচীন। গড় ৪৮.৫২। বল খেলেছেন ৫০,০০০-র বেশি। মোট ১০০ টি শতরান করেছেন। অর্ধশতরানের সংখ্যা ২৬৪। ৩৪ বার শূন্য রানে আউট হয়েছেন।

শচীনের পরই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে সর্বাধিক রানের তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে আছেন কুমার সাঙ্গাকারা। তিনি করেছেন ২৮,০১৮ রান। এখন যারা খেলেন, তাদের মধ্যে বিরাট সকলের ওপরে আছেন। সার্বিক তালিকায় সাত নম্বরে আছেন বিরাট (২৫,৩২২ রান)। অর্থাৎ শচীনের রেকর্ড যে বহু দশক অটুট থাকবে, তা নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই ক্রিকেট মহলের।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে সর্বাধিক সেঞ্চুরি

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের তিন ফরম্যাট মিলিয়ে (টেস্ট, একদিনের ম্যাচ এবং টি-টোয়েন্টি মিলিয়ে) শতরানেরও ‘শতরান’ করেছেন শচীন। একমাত্র ক্রিকেটার হিসেবে ১০০ টি সেঞ্চুরি করেছেন। যে তালিকায় দুই নম্বরে আছেন বিরাট (৭৫ টি শতরান)।ৎ

একদিনের ক্রিকেট এবং টেস্টে সর্বাধিক শতরান

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের সব ফরম্যাট মিলিয়ে শতরানের তালিকায় শীর্ষে থাকার পাশাপাশি একদিনের ক্রিকেট এবং টেস্টেও সর্বাধিক সেঞ্চুরির তালিকার প্রথম নামটা হল শচীনের। ৪৬৩ টি একদিনের ম্যাচে (৪৫২) ৪৯ টি শতরান করেছেন। বিরাট কোহলি করেছেন ৪৬ টি শতরান (২৭৪ টি ম্যাচ)।

টেস্টে ৫১ টি শতরান করেছেন শচীন। এখন যারা খেলেন, তাদের কেউ সেই তালিকার প্রথম দশে নেই। ১২ নম্বরে আছেন স্টিভেন স্মিথ। তার শতরানের সংখ্যা ৩০। ফলে কয়েক যুগ শচীনের রেকর্ড অক্ষুণ্ণ থাকবে।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে সর্বাধিক অর্ধশতরান

শতরানের পর মতো আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে সর্বাধিক অর্ধশতরানের রেকর্ডও শচীনের দখলে আছে। তিনি মোট ২৬৪ টি অর্ধশতরান করেছেন। এখনকার ক্রিকেটারদের মধ্যে প্রথম পাঁচে একজনই আছেন – বিরাট। তার অর্ধশতরানের সংখ্যা ২০৫।

ক ক্যালেন্ডার বর্ষে সর্বাধিক সেঞ্চুরি

শচীনের ঝুলিতে সেই রেকর্ডও আছে। ১৯৯৮ সালে ৩৯ টি ম্যাচে ১২ টি শতরান হাঁকিয়েছিলেন শচীন। সঙ্গে আটটি অর্ধশতরান করেছিলেন। মোট করেছিলেন ২,৫৪১ রান। গড় ছিল ৬৮.৬৭। সর্বোচ্চ ১৭৭ রান করেছিলেন। ওই তালিকায় শচীনের পরে একই ক্যালেন্ডার বর্ষে ১১ টি শতরান করেছেন অনেকে – রিকি পন্টিং, বিরাট কোহলি (দু’বার – ২০১৮ সাল এবং ২০১৭ সাল)।

ক্যারিয়ারে সর্বাধিক ৯০-র ঘরে রান

‘আনলাকি’ ৯০ বলে যে বিষয়টা আছে, সেটার সবথেকে বেশি শিকার হয়েছেন শচীন। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে মোট ২৮ বার ৯০-র ঘরে আউট হয়েছেন ‘মাস্টার ব্লাস্টার’।

সর্বাধিক সিরিজ সেরার পুরস্কার

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে সর্বাধিক সিরিজ সেরার পুরস্কারের তালিকায় যুগ্মভাবে শীর্ষে আছেন শচীন। মোট ২০ বার সিরিজ সেরা নির্বাচিত হয়েছেন (পাঁচবার টেস্টে, ১৫ বার একদিনের ক্রিকেটে)।

বিরাটও ২০ বার সিরিজ সেরার পুরস্কার জিতেছেন (তিনবার টেস্টে, ১০ বার একদিনের ক্রিকটে এবং সাতবার টি-টোয়েন্টিতে)। অর্থাৎ বিরাট যে শচীনকে ছুঁয়েছেন, সেটার পেছনে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের বড় অবদান আছে। ‘মাস্টার ব্লাস্টার’ মাত্র একটি আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেছেন।

সর্বাধিক ম্যাচের সেরা পুরস্কার

২৪ বছরের ক্যারিয়ারে ৭৬ বার ম্যাচের সেরা নির্বাচিত হয়েছেন শচীন। তার পেছনেই আছেন বিরাট। ভারতের সাবেক অধিনায়ক বিরাট ম্যাচের সেরা পুরস্কার জিতেছেন ৬৩ বার।

ক্যারিয়ারে সর্বাধিক বাউন্ডারি (চার)

প্রায় ২৫ বছরের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কেরিয়ারে ৪,০৭৬-র বেশি চার মেরেছেন শচীন। যে তালিকায় শচীনের ধারেকাছে নেই কেউ। দ্বিতীয় স্থানে সাঙ্গাকারা আছেন। তার বাউন্ডারির সংখ্যা ৩,০১৫। বর্তমান খেলোয়াড়দের মধ্যে বিরাটের বাউন্ডারির সংখ্যা ২,৫০৮।

আরও পড়ুন

মতামত দিন


The reCAPTCHA verification period has expired. Please reload the page.

আমাদের সম্পর্কে

We’re a media company. We promise to tell you what’s new in the parts of modern life that matter. Lorem ipsum dolor sit amet, consectetur adipiscing elit. Ut elit tellus, luctus nec ullamcorper mattis, pulvinar dapibus leo. Sed consequat, leo eget bibendum Aa, augue velit.